Darul Ifta, Rahmania Madrasah Sirajganj

ভাষা নির্বাচন করুন বাংলা বাংলা English English
ফাতাওয়া খুঁজুন

হজ ও উমরা

হজ্বের ভিসা ব্যতীত অন্য কোন ভিসায় হজ্ব আদায় করার বিধান

ফতওয়া কোডঃ 167-হউ-25-12-1443

প্রশ্নঃ

কোন ব্যাক্তি হজের ভিসা ব্যাতিত অন্য কোন ভিসা নিয়ে সৌদি আরবে গিয়ে যদি হজ্জ পালন করে, যেমন ভিজিট বা বিজনেস ভিসায়, তাহলে কি তার হজ্জ হবে? জানালে উপকার হবে, জাযাকুমুল্লাহ।

সমাধানঃ

بسم اللہ الرحمن الرحیم

হজ্ব ইসলামের অন্যতম একটি রুকন ও গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। এই মৌলিক ইবাদতের সাথে ভিসার কোন সম্পৃক্ততা নেই। ভিসা হচ্ছে আন্তর্জাতিক ভাবে এক দেশ থেকে অন্য দেশে গমনের ছাড়পত্র। সুতরাং হজ্বের ভিসা ব্যতীত অন্য কোন ভিসায় সৌদি আরবে গিয়ে হজ্ব আদায় করাতে কোন সমস্যা নেই, হজ্বের সব শর্ত-রুকন‌ যথাযথ আদায় করলে হজ্ব হয়ে যাবে। তবে এমনটা করা অনুত্তম।

সুত্রসমূহ

الفتاوى الهندية: 1/219 وأما ركنه فشيئان) الوقوف بعرفة(لقول النبي صلى الله عليه وسلم: “الحج عرفة، من جاء ليلة جَمْع قبل طلوع الفجر فقد أدرك” رواه أبوداود وغيره،) وطواف الزيارة (لقوله سبحانه: “ثم ليقضوا تفثهم وليوفوا نذورهم وليطوفوا بالبيت العتيق” (الحج: 29) الوقوف أقوى من الطواف كذا في النهاية حتى يفسد الحج بالجماع قبل الوقوف، ولا يفسد بالجماع قبل طواف الزيارة كذا في شرح الجامع الصغير لقاضي خان. (وأما واجباته فخمسة) السعي بين الصفا والمروة والوقوف بمزدلفة ورمي الجمار والحلق أو التقصير، وطواف الصدر كذا في شرح الطحاوي

مراقي الفلاح شرح نور الإيضاح: 729 ويصح أداء فرض الحج بأربعة أشياء للحر الإحرام والإسلام وهما شرطان ثم الإتيان بركنيه وهما الوقوف محرما بعرفات لحظة من زوال يوم التاسع إلى فجر يوم النحر يشرط عدم الجماع قبله محرما والركن الثاني هو أكثر طواف الإفاضة في وقته وهو ما بعد طلوع فجر النحر وواجبات الحج إنشاء الإحرام من الميقات ومد الوقوف بعرفات إلى الغروب والوقوف بالمزدلفة فيما بعد فجر يوم النحر وقبل طلوع الشمس ورمي الجمار وذبح القارن والمتمنع والحلق وتخصيصه بالحرم وأيام النحر وتقديم الرمي على الحلق ونحر القارن والمتمتع بينهما وإيقاع طواف الزيادة في أيام النحر والسعي بين الصفا والمروة في أشهر الحج وحصوله بعد طواف معتد به والمشي فيه لمن لا عذر له وبداءة السعي بين الصفا والمروة في أشهر الحج وحصوله بعد طواف معتد به والمشي فيه لمن لا عذر له وبداءة السعي من الصفا وطواف الوداع وبداءة كل طواف بالبيت من الحجر الأسود والتيامن فيه والمشي فيه لمن لا عذر له والطهارة من الحدثين وستر العورة وأقل الأشواط بعد فعل الأكثر من طواف الزيارة وترك المحظورات كلبس الرجل المخيط وستر رأسه ووجهه وستر المرأة وجهها والرفث والفسوق والجدال وقتل الصيد والإشارة إليه


دارالافتاء جامعہ علوم اسلامیہ علامہ محمد یوسف بنوری ٹاؤن: فتوی نمبر 144107200113 وزٹ ویزا پر حج کرنے میں  شرعی نکتہ نظر  سے مضائقہ نہیں، البتہ چوں کہ  حکومتِ سعودیہ کی جانب سے اس ویزہ پر حج کی  پابندی ہے، اور پکڑے جانے کی صورت میں عزت خطرے میں ہوتی ہے؛ اس وجہ سے وزٹ ویزا  پر حج کرنے سے اجتناب کرنا  چاہیے،  تاہم اگر کوئی اس ویزے پر حج کرلے تو حج ادا ہوجائے گا، باقی عمرہ کرنے میں شرعاً  کوئی مضائقہ نہیں

حاشية الطحطاوي: 729

والله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

আপনিসহ এই ফতওয়াটি পড়েছেন মোট 112 জন।

মাহরাম ছাড়া মহিলাদের জন্য হজ্ব-উমরার সফর করাও জায়েজ নয়

ফতওয়া কোডঃ 135-হউ-20-06-1443

প্রশ্নঃ

আসসালামু আলাইকুম৷ একজন বিধবা মহিলা, বয়স ৬০ বছর, তার ছোট বোন ও ছোট বোনের স্বামির সাথে ওমরাহ করতে যেতে পারবে ?

সমাধানঃ

بسم اللہ الرحمن الرحیم

মাহরাম ছাড়া মহিলাদের জন্য সফর করা জায়েজ নয়, যদিও বৃদ্ধ হয়৷ কেননা হাদীসে যুবতী এবং বয়স্ক মহিলার মাঝে পার্থক্য ছাড়া বর্ণিত হয়েছে৷ এমনকি মহিলাদের মাহরাম না থাকলে তার উপর হজ্ব ফরজও হয় না। সুতরাং প্রশ্নে বর্ণিত ৬০ বছরের বিধবা মহিলা, নিজের বোন ও বোনের স্বামীর সাথে ওমরায় যেতে পারবে না৷, কেননা বোনের স্বামী তার মাহরাম নয়৷

মনে রাখতে হবে, হজ্ব ফরজ না হওয়া সত্বেও এবং মাহরাম ছাড়া হজ্ব করা নিষেধ হওয়া সত্বেও যদি কেহ হজ্ব মাহরাম ছাড়াই করে, তাহলে হজ্বটি মাকরূহের সাথে আদায় হয়ে যায়। আর ওমরাহ যেহেতু ফরজ ইবাদত নয়, তাই উক্ত মহিলা নিজের বোন ও বোনের স্বামীর সাথে ওমরায় যাওয়া শরীয়ত সম্মত নয়।

সুত্রসমূহ

الصحيح المسلم: رقم 423 عن أبي سعيد الخدري قال قال رسول الله صلى الله عليه و سلم لا يحل لإمرأة تؤمن بالله واليوم الآخر أن تسافر سفرا يكون ثلاثة أيام فصاعدا إلا ومعها أبوها أو ابنها أو زوجها أو أخوها أو ذو محرم منها

البحر الرائق: 2/552 يُشْتَرَطُ فِي حَجِّ الْمَرْأَةِ مِنْ سَفَرِ زَوْجٍ أَوْ مَحْرَمٍ بَالِغٍ عَاقِلٍ غَيْرِ مَجُوسِيٍّ وَلَا فَاسِقٍ مَعَ النَّفَقَةِ عَلَيْهِ وَأَطْلَقَ الْمَرْأَةَ فَشَمِلَ الشَّابَّةَ وَالْعَجُوزَ لِإِطْلَاقِ النُّصُوصِ

المحيط البرهانى: 3/394 يُشْتَرَطُ فِي حَجِّ الْمَرْأَةِ مِنْ سَفَرِ زَوْجٍ أَوْ مَحْرَمٍ بَالِغٍ عَاقِلٍ غَيْرِ مَجُوسِيٍّ وَلَا فَاسِقٍ مَعَ النَّفَقَةِ عَلَيْهِ وَأَطْلَقَ الْمَرْأَةَ فَشَمِلَ الشَّابَّةَ وَالْعَجُوزَ لِإِطْلَاقِ النُّصُوصِ

رد المحتار: 2/465 وَلَوْ حَجَّتْ بِلَا مَحْرَمٍ جَازَ مَعَ الْكَرَاهَةِ الخ- (قَوْلُهُ مَعَ الْكَرَاهَةِ) أَيْ التَّحْرِيمِيَّةِ لِلنَّهْيِ فِي حَدِيثِ الصَّحِيحَيْنِ «لَا تُسَافِرْ امْرَأَةٌ ثَلَاثًا إلَّا وَمَعَهَا مَحْرَمٌ» زَادَ مُسْلِمٌ فِي رِوَايَةٍ «أَوْ زَوْجٌ»

والله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

আপনিসহ এই ফতওয়াটি পড়েছেন মোট 553 জন।

নিজের ফরয হজ আদায় না করে কারো বদলী হজ আদায় করলে কার হজ আদায় হবে?

ফতওয়া কোডঃ 78-হউ-07-02-1443

প্রশ্নঃ ছেলের উপর হজ ফরয, মা ইন্তেকালের আগে কোন অসিয়ত করেন নাই, এখন ছেলে নিজের ফরয হজ না করে মায়ের পক্ষ থেকে হজ করেছে, তো কার হজ আদায় হয়েছে ছেলের না মায়ের?

উত্তরঃ بسم الله الرحمن الرحيم

ছেলের পক্ষ থেকে হজ আদায় হয়েছে, সওয়াব মা পেয়েছে।

সূত্রঃ রদ্দুল মুহতারঃ ২/৬০৯, ফাতাওয়ায়ে ফকিহুল মিল্লাতঃ ৫/৫৭৭-৫৭৮

والله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

আপনিসহ এই ফতওয়াটি পড়েছেন মোট 315 জন।