Darul Ifta, Rahmania Madrasah Sirajganj

ভাষা নির্বাচন করুন বাংলা বাংলা English English
ফাতাওয়া খুঁজুন

নামাজের শেষ বৈঠক, আমলে কাছিরা ও নামাজে দুনিয়াবী কথা বলা সংক্রান্ত ফাতাওয়া

ফতওয়া কোডঃ 143-সা-17-07-1443

প্রশ্নঃ

আসসালামু আলাইকুম, আমার প্রশ্ন হলো

১. নামাযে শেষ বৈঠকে তাশহুদ পড়ার পর ওজু ভঙ্গ হলে ওজু করে এসে সালাম ফিরেয়ে নিলে নামায হয়ে যাব। এই ফতওয়া আপনারা দিয়েছেন। এখানে আমার জানার হলো সালাম কোন জায়গায় বসে দিবে?

২. নামায ভঙ্গের কারণগুলোর মধ্যে দুটো হলো
ক. আমলে কাছীর করা। এখানে আমলে কাছীর বলতে কি ধরনের কাজকে বুঝানো হয়েছে?
খ. নামাযে দুনিয়াবী কিছু প্রার্থনা করা। এই বিষয়টি বুঝিয়ে বলবেন।

সমাধানঃ

بسم اللہ الرحمن الرحیم

১. নামাজে মুক্তাদী অনিচ্ছায় উযু ভাঙ্গার কারণে যদি উযু করতে যায় এবং উযু শেষ করে ইমামকে নামাজে পায় এবং উযুর স্থান এমন হয় যেখান থেকে এক্তেদা করলে শুদ্ধ হবে না ( কোন প্রতিবন্ধকতার কারণে) তাহলে ফিরে এসে ইমামের সাথে সালাম ফিরাবে। আর যদি উযু করার স্থানে এক্তেদা শুদ্ধ হয় অথবা ইমাম সাহেব সালাম ফিরিয়ে নামাজ শেষ করে দেয় তাহলে উযু করার স্থানে সালাম ফিরিয়ে নামাজ শেষ করে নিবে, এসুরতে আপন স্থানে ফিরে নামাজ শেষ করা উচিত নয়।

২. (ক) আমলে কাছীর সম্পর্কে ফুকাহায়ে কেরাম থেকে কয়েকটি মতামত বর্ণিত রয়েছে তন্মধ্যে গ্রহণযোগ্য তিনটি মতামত তুলে ধরা হলো যথা:- ১. নামাজের ভিতরে এমন কোন কাজ করা যা দূর থেকে প্রত্যক্ষকারী ঐ ব্যক্তিকে নামাজে না থাকার ব্যাপারে নিশ্চিত হয়। ২. আমলে কাসীর দ্বারা প্রত্যেক এমন কাজ কে বোঝানো হয় যা সাধারণত দুই হাত দ্বারা করা হয় যেমন: পাগড়ি বাধা, লুঙ্গি পরা ইত্যাদি। ৩. কোন কাজ ধারাবাহিকভাবে তিন তাসবিহ পরিমাণ দীর্ঘায়িত করা। (খ) নামাজে দুনিয়াবি কিছু প্রার্থনা করলে নামায ভেঙ্গে যাবে এ বিষয়ে মূলনীতি হল: যদি কুরআন-হাদিসে বর্ণিত কোন দোয়ার মাধ্যমে কিছু প্রার্থনা করা হয় অথবা কুরআন-হাদিস বহির্ভূত এমন কিছু প্রার্থনা করা হয় যা মানুষের কাছে চাওয়া-পাওয়া অসম্ভব, এতে নামাজ ভাঙ্গবে না। আর যদি কুরআন-হাদিস বহির্ভূত এমন কোন কিছু প্রার্থনা করা হয় যা মানুষের নিকট চাওয়া সম্ভব তাতে নামাজ ভেঙ্গে যাবে। আর নামাজে আরবি ব্যতীত অন্য কোন ভাষায় কোন দোয়া বা কিছু বললে সর্বাবস্থায় ভঙ্গ হয়ে যাবে।

সুত্রসমূহ

فتاوى الهندية: 1/95 ومنها إذا كان مقتديا أن يعود إلى الإمام إن لم يكن فرغ الإمام وكان بينهما حائل يمنع جواز الاقتداء ولو فرغ إمامه لا يعود ولو عاد اختلفوا في فساد صلاته ولو لم يكن بينهما مانع فله الاقتداء من مكانه من غير عود. هكذا في البحر الرائق والمنفرد بعد ما توضأ يتخير بين إتمام الصلاة في بيته والرجوع إلى مصلاه والرجوع أفضل. هكذا في الكافي والإمام كالمنفرد إن فرغ إمامه وإلا عاد ويتم خلف خليفته. كذا في شرح الوقاية

البحر الرائق: 2/3 . قَوْلُهُ وَالدُّعَاءُ بِمَا يُشْبِهُ كَلَامَنَا أَفْرَدَهُ وَإِنْ دَخَلَ فِي التَّكَلُّمِ لِأَنَّ الشَّافِعِيَّ لَا يُفْسِدُهَا بِالدُّعَاءِ وَيَنْبَغِي أَنْ يَتَعَلَّقَ قَوْلُهُ بِمَا يُشْبِهُ كَلَامَنَا بِالتَّكَلُّمِ وَالدُّعَاءِ وَقَدْ قَدَّمْنَا بِأَنَّ الدُّعَاءَ بِمَا يُشْبِهُ كَلَامَنَا هُوَ مَا أَمْكَنَ سُؤَالُهُ مِنْ الْعِبَادِ كَاللَّهُمَّ أَطْعِمْنِي أَوْ اقْضِ دَيْنِي وَارْزُقْنِي فُلَانَةَ عَلَى الصَّحِيحِ وَمَا اسْتَحَالَ طَلَبُهُ مِنْ الْعِبَادِ فَلَيْسَ مِنْ كَلَامِنَا مِثْلَ الْعَافِيَةِ وَالْمَغْفِرَةِ وَالرِّزْقِ سَوَاءٌ كَانَ لِنَفْسِهِ أَوْلِغَيْرِهِ وَلَوْ لِأَخِيهِ عَلَى الصَّحِيحِ

رد المحتار: 1/624 و يفسدها (كل عمل كثير) ليس من أعمالها ولا لإصلاحها، وفيه أقوال خمسة أصحها (ما لايشك) بسببه (الناظر) من بعيد (في فاعله أنه ليس فيها) وإن شك أنه فيها أم لا فقليل۔… القول الثاني أن ما يعمل عادة باليدين كثير وإن عمل بواحدة كالتعميم وشد السراويل وما عمل بواحدة قليل وإن عمل بهما كحل السراويل ولبس القلنسوة ونزعها إلا إذا تكرر ثلاثا متوالية وضعفه في البحر بأنه قاصر عن إفادة ما لا يعمل باليد كالمضغ والتقبيل. الثالث الحركات الثلاث المتوالية كثير وإلا فقليل الرابع ما يكون مقصودا للفاعل بأن يفرد له مجلسا على حدة. قال في التتارخانية: وهذا القائل: يستدل بامرأة صلت فلمسها زوجها أو قبلها بشهوة أو مص صبي ثديها وخرج اللبن: تفسد صلاتها. الخامس التفويض إلى رأي المصلي، فإن استكثره فكثير وإلا فقليل قال القهستاني: وهو شامل للكل وأقرب إلى قول أبي حنيفة، فإنه لم يقدر في مثله بل يفوض إلى رأي المبتلى. اهـ. قال في شرح المنية: ولكنه غير مضبوط، وتفويض مثله إلى رأي العوام مما لا ينبغي، وأكثر الفروع أو جميعها مفرع على الأولين. والظاهر أن ثانيهما ليس خارجا عن الأول، لأن ما يقام باليدين عادة يغلب ظن الناظر أنه ليس في الصلاة، وكذا قول من اعتبر التكرار ثلاثا متوالية فإنه يغلب الظن بذلك، فلذا اختاره جمهور المشايخ. اهـ. الدر المختار وحاشية ابن عابدين

رد المحتار: 1/619

البحر الرائق: 1/405

حاشية الطحطاوي: رقم 322

والله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

আপনিসহ এই ফতওয়াটি পড়েছেন মোট 341 জন।