সালাত (নামাজ)

মৃত ব্যক্তির জানাযার নামাজ কয়েকবার পড়া জায়েয আছে কি?

ফতওয়া কোডঃ 196-সা-22-09-1444

প্রশ্নঃ

একজন মৃত ব্যক্তির জানাযার নামাজ কয়েকবার পড়া জায়েজ আছে কিনা? অনুগ্রহপূর্বক জানিয়ে বাধিত করবেন।

সমাধানঃ

بسم الله الرحمن الرحيم

শরয়ী পদ্ধতিতে একবার জানাযা হয়ে যাবার পর দ্বিতীয়বার জানাযা পড়া অহেতুক কাজ, যা নাজায়েয। এমন অহেতুক কাজ থেকে বিরত থাকা প্রতিটি মুসলমানের ঈমানী দায়িত্ব। তবে ওলীর অনুমতি ছাড়া পড়লে ওলী চাইলে দ্বিতীয়বার জানাযা পড়াতে পারেন।

সুত্রসমূহ

البحر الرائق: 2/309 فإن صلى عليه الولى، لم يجز أن يصلى عليه أحد بعده

البحر الرائق: 2/318 قوله: ولا يصلى غيره بعده) أى بعد ما صلى الولى، لأن الفرض قد تأدى بالأولى، والتنفل بها غير مشروع

الدر المختار: 2/222-223 قوله: ولا يصلى غيره بعده) أى بعد ما صلى الولى، لأن الفرض قد تأدى بالأولى، والتنفل بها غير مشروع

والله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

Loading

দু’আ কুনুতের জায়গায় সূরা ইখলাস পড়া যাবে কি?

ফতওয়া কোডঃ 194-সা-20-09-1444

প্রশ্নঃ

দু’আ কুনুত না পড়ে সূরা ইখলাস পড়া যাবে কি? গেলে কতবার পড়তে হবে। অনেকে দু’আ কুনুত না পড়ে সূরা ইখলাস পড়ে, এক্ষেত্রে তাদের নামায সহিহ হবে কিনা?

সমাধানঃ

بسم الله الرحمن الرحيم

বিতর নামাজে প্রসিদ্ধ দোয়ায়ে কুনুত পাঠ করা উত্তম। তবে কেউ যদি দোয়ায়ে কুনুত না পারে তবে অতি দ্রুত শিখে নিবে এবং মুখস্থ করার আগ পর্যন্ত তার জন্য اربنا آتنا في الدنيا حسنة وفي الآخرة حسنة وقنا عذاب النار অথবা কুরআন-হাদীসে বর্ণিত কোন দোয়া পড়লে নামাজ আদায় হয়ে যাবে। কিন্তু দোয়ায়ে কুনুত মুখস্থ না করে এতে ক্ষ্যান্ত থাকা উচিত নয়।

সুত্রসমূহ

البحر الرائق: 2/45 عن أبي عبد الرحمن قال: علمنا ابن مسعود أن نقرأ في القنوت: اللهم إنا نستعینک و نستغفرك و نشي عليك الخير ولا نكفرك، ونخلع و نترك من يفجرك، اللهم إياك نعبد ولک نصلي ونسجد، وإليك نسعى ونحفد نرجو رحمتک و نخشی عذابك إن عذابك الجد بالكفار محلق المصنف لابن أبي شيبة ٥١٨٨٤ رقم ٦٩٦٥),‌ دعاء القنوت أولى وقال بعض مشايخنا المراد من قوله ليس فيه دعاء مؤقت ما سوى اللهم إنا نستعينك لأن الصحابة اتفقوا عليه فالأولى أن يقرأه ولو قرأ غيره جاز ولو قرأ معه غيره كان حسنا والأولى أن يقرأ بعده ما علمه رسول الله – صلى الله عليه وسلم – الحسن بن علي في قنوته «اللهم اهدني فيمن هديت» إلى آخره وقال بعضهم الأفضل في الوتر أن يكون فيه دعاء مؤقت لأن الإمام ربما يكون جاهلا فيأتي بدعاء يشبه كلام الناس فتفسد صلاته وما روي عن محمد من أن التوقيت في الدعاء يذهب برقة القلب محمول على أدعية المناسك دون الصلاة كذا في البدائع….. لا يحسن القنوت بالعربية أو لا يحفظه ففيه ثلاثة أقوال مختارة قيل يقول يا رب ثلاث مرات ثم يركع وقيل يقول اللهم اغفر لي ثلاث مرات وقيل اللهم ربنا آتنا في الدنيا حسنة وفي الآخرة حسنة وقنا عذاب النار

كتاب النوازل: 4/570

والله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

Loading

ভুলে দুআয়ে কুনুতের স্থানে দুআয়ে মাছুরা পড়লে কি সাজদায়ে সাহু দিতে হবে?

ফতওয়া কোডঃ 183-সা-21-07-1444

প্রশ্নঃ

ভুলে দুআয়ে কুনুতের স্থানে দুআয়ে মাছুরা পড়লে কি সাজদায়ে সাহু দিতে হবে?

সমাধানঃ

بسم اللہ الرحمن الرحیم

ভুলে যদি কেউ দুআয়ে কুনুতের স্থানে দুআয়ে মাছুরা পড়ে তাহলে সাজদায়ে সাহু দিতে হবেনা‍, কেননা দুআয়ে কুনুত নামে আমরা যে দুআটি পড়ি, বিতর নামাজে সেই দূআটি পড়া সৰ্বোত্ৰম।

তবে এটা ছাড়া এমন কোন দুআও পড়া যাবে যা কুরআন হাদীসের সাথে সাদৃশ্যপূৰ্ন হয় এবং তা মানুষের কথার সাথে সাদৃশ্যপূৰ্ন না হয়। যেমন আল্লাহর নবী সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হযরত হাসান রাযিঃ কে কুনুতে পড়ার জন্য এই দুআ শিক্ষা দিয়েছেন اللهم اهدينا فيمن هديت… তবে নবী সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে আরো অন্যান্য ভিন্ন দুআও বৰ্নিত আছে।

সুত্রসমূহ

الفتاوى الهندية: كتاب الصلاة. الباب الثاني في صلاة الوتر

بدائع الصنائع: كتاب الصلاة. فصل في انواع الصلاة الواجبة. و منها صلاة الوتر. فصل في القنوت. (واما دعاء القنوت فليس في القنوت دعاء موقت كذا ذكر الكرخي في كتاب الصلاة. ( حتي قال فيه) ولو قرء غيره جاز. ولو قرء معه غيره كان حسنا

البحر الرائق: كتاب الصلاة…باب الوتر و النفل

المبسوط: كتاب الصلاة. باب احكام الوتر. الفصل الثاني. القنوت في الوتر

رد المحتار: كتاب الصلاة باب الوتر و النوافل

و الله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

Loading

ভুলে সাজদায়ে সাহু ভুলে গেলে, নামাজ শেষে মনে পরলে করনীয়

ফতওয়া কোডঃ 181-সা-30-06-1444

প্রশ্নঃ

আমার নামাযে ওয়াজিব ছুটে যায়। কিন্তু শেষ বৈঠকে ভুলে সাহু সাজদাহ না করে উভয় দিকে সালাম ফিরিয়ে নামাযের পরবর্তী আমল তাসবিহ আদায় শুরু করি। যখন সুবহানাল্লাহ ২/৩বার পাঠ করি তখন সাহু সাজদাহর কথা স্বরণ হয় এবং সাথে সাথে তা আদায় করি। এমতাবস্থায় আমার নামায কি হয়েছে? আর তাসবিহ পাঠ করা কি নামাজ পরিপন্থী কাজ?

সমাধানঃ

بسم اللہ الرحمن الرحیم

প্রশ্নোক্ত সুরতে সাহু সিজদার পর তাশাহুদ পড়লে আপনার নামায হয়েছে। অন্যথায় ওয়াজিব ছেড়ে দেওয়ার গুনাহ হবে। তাসবীহ পাঠ করা নামাজ পরিপন্থী নয়।

সুত্রসমূহ

رد المحتار على الدر المختار: 2/558

مراقي الفلاح: 250

الفتاوى الرحيمية: 5/194

فتاوى محمودية: 11/524

والله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

Loading

মাসবুক ব্যক্তির নামাজের কিছু বিধান

ফতওয়া কোডঃ 150-সা-08-08-1443

প্রশ্নঃ

আসসালামু আলাইকুম।

১. হযরত, ফজরের ২য় রাকাতের ফরজে ইমাম সাহেবের পিছনে ১ রাকাআত পাবার পরে ইমামের শেষ বৈঠকে কি তাশাহুদ, দরুদ শরীফ, দুআ সবই পড়তে হবে? নাকি শুধু তাশাহুদ পড়লেই হবে? আর পড়লে কোন সমস্যা আছে?

২. ৪ রাকাত ফরজের ২ রাকাতের সময় তাশাহুদের পরে ভুলে দূরুদ পড়ে ফেললে কি সাহু সিজদা লাগবে কিংবা নামায মাকরুহ হবে?

সমাধানঃ

بسم اللہ الرحمن الرحیم

১. মাসবুক ব্যক্তি উক্ত বৈঠকে শুধু তাশাহুদ পড়বে।

২. চার রাকাআত বা তিন রাকাআত বিশিষ্ট নামাজে প্রথম বৈঠকে তাশাহহুদ পড়ার পর দরুদ শরীফ পাঠ করলে পরবর্তী রাকাত বিলম্ব হয়, যেহেতু সাথে সাথেই দাড়ানোর নিয়ম ছিলো, আর দরুদ শরীফ পাঠ করার কারনে দাড়ানোর ক্ষেত্রে কিছুটা বিলম্ব হলো, তাই সেজদায়ে সাহু ওয়াজিব হবে। তাশাহুদের পর শুধুমাত্র ৪২ হরফ পরিমাণ পড়লে তথা “আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা মুহাম্মাদ ওয়া আলা আলী মুহাম্মদ” পর্যন্ত পড়লে সেজদায়ে সাহু আবশ্যক হয়ে যায়। হযরত শাবী রহঃ বলেনঃ যে ব্যক্তি প্রথম দুই রাকাতের বৈঠকে তাশাহুদের পর কোন কিছু পড়ে, তাহলে তার উপর দুই সেজদায়ে সাহু দেয়া আবশ্যক।

সুত্রসমূহ

رد المحتار: 2/220-221 وأما المسبوق فيترسل ليفرغ عند سلام إمامه وقيل يتم وقد يكرر كلمة الشهادة، وقال ابن عابدين- ( قوله فيترسل ) أي يتمهل ، وهذا ما صححه في الخانية وشرح المنية في بحث المسبوق من باب السهو وباقي الأقوال مصحح أيضا…… وقيل يكرر كلمة الشهادة كذا في شرح المنية والذي في البحر والحلية والذخيرة يكرر التشهد تأمل

فتاوي عالمغيري: 1/91

البحر الرايق: 1/875

الفتاوي التاتارخانية: 1/559

الدر المختار: 2/456 ولا يصلي على النبي صلى الله عليه وسلم في القعدة الأولى في الأربع قبل الظهر والجمعة وبعدها ) ولو صلى ناسيا فعليه السهو

الفتاوى الهندية: 1/127

مراقى الفلاح: رقم 376

والله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

Loading

নামাজের শেষ বৈঠক, আমলে কাছিরা ও নামাজে দুনিয়াবী কথা বলা সংক্রান্ত ফাতাওয়া

ফতওয়া কোডঃ 143-সা-17-07-1443

প্রশ্নঃ

আসসালামু আলাইকুম, আমার প্রশ্ন হলো

১. নামাযে শেষ বৈঠকে তাশহুদ পড়ার পর ওজু ভঙ্গ হলে ওজু করে এসে সালাম ফিরেয়ে নিলে নামায হয়ে যাব। এই ফতওয়া আপনারা দিয়েছেন। এখানে আমার জানার হলো সালাম কোন জায়গায় বসে দিবে?

২. নামায ভঙ্গের কারণগুলোর মধ্যে দুটো হলো
ক. আমলে কাছীর করা। এখানে আমলে কাছীর বলতে কি ধরনের কাজকে বুঝানো হয়েছে?
খ. নামাযে দুনিয়াবী কিছু প্রার্থনা করা। এই বিষয়টি বুঝিয়ে বলবেন।

সমাধানঃ

بسم اللہ الرحمن الرحیم

১. নামাজে মুক্তাদী অনিচ্ছায় উযু ভাঙ্গার কারণে যদি উযু করতে যায় এবং উযু শেষ করে ইমামকে নামাজে পায় এবং উযুর স্থান এমন হয় যেখান থেকে এক্তেদা করলে শুদ্ধ হবে না ( কোন প্রতিবন্ধকতার কারণে) তাহলে ফিরে এসে ইমামের সাথে সালাম ফিরাবে। আর যদি উযু করার স্থানে এক্তেদা শুদ্ধ হয় অথবা ইমাম সাহেব সালাম ফিরিয়ে নামাজ শেষ করে দেয় তাহলে উযু করার স্থানে সালাম ফিরিয়ে নামাজ শেষ করে নিবে, এসুরতে আপন স্থানে ফিরে নামাজ শেষ করা উচিত নয়।

২. (ক) আমলে কাছীর সম্পর্কে ফুকাহায়ে কেরাম থেকে কয়েকটি মতামত বর্ণিত রয়েছে তন্মধ্যে গ্রহণযোগ্য তিনটি মতামত তুলে ধরা হলো যথা:- ১. নামাজের ভিতরে এমন কোন কাজ করা যা দূর থেকে প্রত্যক্ষকারী ঐ ব্যক্তিকে নামাজে না থাকার ব্যাপারে নিশ্চিত হয়। ২. আমলে কাসীর দ্বারা প্রত্যেক এমন কাজ কে বোঝানো হয় যা সাধারণত দুই হাত দ্বারা করা হয় যেমন: পাগড়ি বাধা, লুঙ্গি পরা ইত্যাদি। ৩. কোন কাজ ধারাবাহিকভাবে তিন তাসবিহ পরিমাণ দীর্ঘায়িত করা। (খ) নামাজে দুনিয়াবি কিছু প্রার্থনা করলে নামায ভেঙ্গে যাবে এ বিষয়ে মূলনীতি হল: যদি কুরআন-হাদিসে বর্ণিত কোন দোয়ার মাধ্যমে কিছু প্রার্থনা করা হয় অথবা কুরআন-হাদিস বহির্ভূত এমন কিছু প্রার্থনা করা হয় যা মানুষের কাছে চাওয়া-পাওয়া অসম্ভব, এতে নামাজ ভাঙ্গবে না। আর যদি কুরআন-হাদিস বহির্ভূত এমন কোন কিছু প্রার্থনা করা হয় যা মানুষের নিকট চাওয়া সম্ভব তাতে নামাজ ভেঙ্গে যাবে। আর নামাজে আরবি ব্যতীত অন্য কোন ভাষায় কোন দোয়া বা কিছু বললে সর্বাবস্থায় ভঙ্গ হয়ে যাবে।

সুত্রসমূহ

فتاوى الهندية: 1/95 ومنها إذا كان مقتديا أن يعود إلى الإمام إن لم يكن فرغ الإمام وكان بينهما حائل يمنع جواز الاقتداء ولو فرغ إمامه لا يعود ولو عاد اختلفوا في فساد صلاته ولو لم يكن بينهما مانع فله الاقتداء من مكانه من غير عود. هكذا في البحر الرائق والمنفرد بعد ما توضأ يتخير بين إتمام الصلاة في بيته والرجوع إلى مصلاه والرجوع أفضل. هكذا في الكافي والإمام كالمنفرد إن فرغ إمامه وإلا عاد ويتم خلف خليفته. كذا في شرح الوقاية

البحر الرائق: 2/3 . قَوْلُهُ وَالدُّعَاءُ بِمَا يُشْبِهُ كَلَامَنَا أَفْرَدَهُ وَإِنْ دَخَلَ فِي التَّكَلُّمِ لِأَنَّ الشَّافِعِيَّ لَا يُفْسِدُهَا بِالدُّعَاءِ وَيَنْبَغِي أَنْ يَتَعَلَّقَ قَوْلُهُ بِمَا يُشْبِهُ كَلَامَنَا بِالتَّكَلُّمِ وَالدُّعَاءِ وَقَدْ قَدَّمْنَا بِأَنَّ الدُّعَاءَ بِمَا يُشْبِهُ كَلَامَنَا هُوَ مَا أَمْكَنَ سُؤَالُهُ مِنْ الْعِبَادِ كَاللَّهُمَّ أَطْعِمْنِي أَوْ اقْضِ دَيْنِي وَارْزُقْنِي فُلَانَةَ عَلَى الصَّحِيحِ وَمَا اسْتَحَالَ طَلَبُهُ مِنْ الْعِبَادِ فَلَيْسَ مِنْ كَلَامِنَا مِثْلَ الْعَافِيَةِ وَالْمَغْفِرَةِ وَالرِّزْقِ سَوَاءٌ كَانَ لِنَفْسِهِ أَوْلِغَيْرِهِ وَلَوْ لِأَخِيهِ عَلَى الصَّحِيحِ

رد المحتار: 1/624 و يفسدها (كل عمل كثير) ليس من أعمالها ولا لإصلاحها، وفيه أقوال خمسة أصحها (ما لايشك) بسببه (الناظر) من بعيد (في فاعله أنه ليس فيها) وإن شك أنه فيها أم لا فقليل۔… القول الثاني أن ما يعمل عادة باليدين كثير وإن عمل بواحدة كالتعميم وشد السراويل وما عمل بواحدة قليل وإن عمل بهما كحل السراويل ولبس القلنسوة ونزعها إلا إذا تكرر ثلاثا متوالية وضعفه في البحر بأنه قاصر عن إفادة ما لا يعمل باليد كالمضغ والتقبيل. الثالث الحركات الثلاث المتوالية كثير وإلا فقليل الرابع ما يكون مقصودا للفاعل بأن يفرد له مجلسا على حدة. قال في التتارخانية: وهذا القائل: يستدل بامرأة صلت فلمسها زوجها أو قبلها بشهوة أو مص صبي ثديها وخرج اللبن: تفسد صلاتها. الخامس التفويض إلى رأي المصلي، فإن استكثره فكثير وإلا فقليل قال القهستاني: وهو شامل للكل وأقرب إلى قول أبي حنيفة، فإنه لم يقدر في مثله بل يفوض إلى رأي المبتلى. اهـ. قال في شرح المنية: ولكنه غير مضبوط، وتفويض مثله إلى رأي العوام مما لا ينبغي، وأكثر الفروع أو جميعها مفرع على الأولين. والظاهر أن ثانيهما ليس خارجا عن الأول، لأن ما يقام باليدين عادة يغلب ظن الناظر أنه ليس في الصلاة، وكذا قول من اعتبر التكرار ثلاثا متوالية فإنه يغلب الظن بذلك، فلذا اختاره جمهور المشايخ. اهـ. الدر المختار وحاشية ابن عابدين

رد المحتار: 1/619

البحر الرائق: 1/405

حاشية الطحطاوي: رقم 322

والله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

Loading

তাশাহুদের পর অজু ভেঙ্গে গেলে উক্ত নামাযের বিধান কি?

ফতওয়া কোডঃ 128-সা-29-05-1443

প্রশ্নঃ

আসসালামু আলাইকুম, আচ্ছা হুজুর শেষ বৈঠকে তাশাহুদের পর সালাম ফিরানোর আগে যদি কোন কারনে উযু ভেঙ্গে যায়, তাহলে এই নামাযের বিধান কি?

সমাধানঃ

بسم اللہ الرحمن الرحیم

যদি শেষ বৈঠকে তাশাহুদের পর সালাম ফিরানোর আগে কোন কারনে উযু ভেঙ্গে যায়, তাহলে কথা-বার্তা না বলে উযু করে এসে সালাম ফিরালে নামাজ হয়ে যাবে, অন্যথায় এই নামাজ পুনরায় পড়া ওয়াজিব।

কারো সাথে কথা-বার্তা বলে ফেললে বা মসজিদ থেকে বের হয়ে গেলে তখনও এই নামাজ পুনরায় পড়া ওয়াজিব।

সুত্রসমূহ

الدر المختار: 2/162 ( ولفظ السلام ) مرتين فالثاني واجب على الأصح

فيه ايضا: 2/558-559 ( ويسجد للسهو ولو مع سلامه ) ناويا ( للقطع ) لأن نية تغيير المشروع لغو ( ما لم يتحول عن القبلة أو يتكلم ) لبطلان التحريمة ولو نسي السهو أو سجدة صلبية أو تلاوية يلزمه ذلك ما دام في المسجد

فيه ايضا: 2/146-147 (لها واجبات) لا تفسد بتركها وتعاد وجوبا فى العمد والسهو إن لم يسجد له، وإن لم يعدها يكون فاسقا آثما

رد المحتار: 2/147-148 وكذا كل صلاة أديت مع كراهة التحريم تجب إعادتها،والمختار أنه جابر للأول ، لأن الفرض لا يتكرر

والله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

Loading

চলন্ত বাসে ইশারায় নামাজ পড়ার পর উক্ত নামাজ পরে পুনরায় পড়া জরুরী

ফতওয়া কোডঃ 126-সা-23-05-1443

প্রশ্নঃ

চলন্ত বাসে ইশারায় নামায পড়েছি, এখন পরবর্তীতে উক্ত নামায পুনরায় পড়তে হবে কি না? জানাবেন!

সমাধানঃ

بسم اللہ الرحمن الرحیم

জি, কখনো কখনো চলন্ত বাসে কিবলামুখী হওয়া যায়না, দাড়ানো সম্ভব হয়না, রুকু-সিজদা করা যায়না, এ অবস্থায় বাধ্য হয়েই ইশারায় নামাজ পড়তে হয়। তাই এমন ভাবে ইশারায় নামায পড়ার পর পরবর্তীতে উক্ত নামায পুনরায় পড়ে নেয়া অত্যাবশ্যক ও জরুরী।

সুত্রসমূহ

البحر الرائق: 1/248 فعلم منه أن العذر إن كان من قبل الله تعالى لا تجب الإعادة، وإن كان من قبل العبد وجبت الإعادة

رد المحتار: 2/131-133 ومنها القيام لقادر عليه, فلو عجز حقيقة وهو ظاهر أو حكما كما لو حصل له به ألم شديد، أو خاف زيادة المرض ….. فإنه يسقط

صحيح البخارى: 1/115 رقم 1117 عن عمران بن حصين رضى الله عنه قال: كانت بى بواسير، فسألت النبى صلى الله عليه وسلم عن الصلاة، فقال: صل قائما، فإن لم تستطع فقاعدا، فإن لم تستطع فعلى جنب

فتح القدير: 1/276 ولو كان على الدابة يخاف النزول للطين والردغة يستقبل، قال فى الظهيرية: وعندى هذا إذا كانت واقفة، فإن كانت سائرة يصلى حيث شاء

والله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

Loading

বিতরের নামাজ বাদ পরলে কাজা করে নিতে হবে

ফতওয়া কোডঃ 111-সা-06-05-1443

প্রশ্নঃ

ফরজ নামাযের মতো বিতরের নামাযও কি কাযা করতে হবে?

সমাধানঃ

بسم اللہ الرحمن الرحیم

নির্ভরযোগ্য তথ্য মতে বিতরের নামাজ পড়া ওয়াজিব, তাই কখনও এ নামাজ বাদ পড়লে ফরজ নামাজের মতো বিতর নামজেরও কাজা আদায় করে নিতে হবে।

সুত্রসমূহ

الدر المختار وحاشية ابن عابدين رد المحتار: 2/73 وكذا حكم الوتر وقال ابن عابدين، لأنه فرض عملى عنده

والله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

Loading

নামাজের শেষ বৈঠকে শুধু দরুদ শরীফ তাকরার করলে সাজদায়ে সাহু ওয়াজিব হয় না

ফতওয়া কোডঃ 110-সা-06-05-1443

প্রশ্নঃ

নামাজে দরুদ শরীফ পড়ার সময় ভুলে যাবার কারনে দরুদ শরীফের কিছু অংশ বারবার পড়লে কি সাহু সিজদা দিতে হবে? এই সাহু সিজদা কখন কিভাবে দিবে?

সমাধানঃ

بسم اللہ الرحمن الرحیم

নামাজের শেষ বৈঠকে দরুদ শরীফ পড়ার সময় দরুদ শরীফ ভুলে যাবার কারনে দরুদ শরীফের কিছু অংশ বারবার পড়লে সাজদায়ে সাহু ওয়াজিব হবে না।

নামজে সাধারনত এ ধরনের অবস্থা হয় অত্যাধিক ওয়াসওয়াসা বা মনোযোগ কম থাকার কারনে, কখনও এমন সাধারন বিষয় গুরুত্ব না দেয়ার কারনে নামাজ বাতিল হয়ে যায় অথচ আমরা বুঝি না। তাই খুশু-খুজু সহকারে নামাজ আদায় করা তাকওয়ার দাবী।

সুত্রসমূহ

الدر المختار وحاشية ابن عابدين رد المحتار: 1/460 قَوْلُهُ وَكَذَا تَرْكُ تَكْرِيرِهَا إلَخْ فَلَوْ قَرَأَهَا فِي رَكْعَةٍ مِنْ الْأُولَيَيْنِ مَرَّتَيْنِ وَجَبَ سُجُودُ السَّهْوِ لِتَأْخِيرِ الْوَاجِبِ وَهُوَ السُّورَةُ كَمَا فِي الذَّخِيرَةِ وَغَيْرِهَا، وَكَذَا لَوْ قَرَأَ أَكْثَرَهَا ثُمَّ أَعَادَهَا كَمَا فِي الظَّهِيرِيَّةِ، أَمَّا لَوْ قَرَأَهَا قَبْلَ السُّورَةِ مَرَّةً وَبَعْدَهَا مَرَّةً فَلَا يَجِبُ كَمَا فِي الْخَانِيَّةِ وَاخْتَارَهُ فِي الْمُحِيطِ وَالظَّهِيرِيَّةِ وَالْخُلَاصَةِ وَصَحَّحَهُ الزَّاهِدِيُّ لِعَدَمِ لُزُومِ التَّأْخِيرِ لِأَنَّ الرُّكُوعَ لَيْسَ وَاجِبًا بِإِثْرِ السُّورَةِ، فَإِنَّهُ لَوْ جَمَعَ بَيْنَ سُوَرٍ بَعْدَ الْفَاتِحَةِ لَا يَجِبُ عَلَيْهِ شَيْءٌ، كَذَا فِي الْبَحْرِ

حاشية الطحطاوى على مراقى الفلاح: 460

البحر الرائق: 2/97

احسن الفتاوى: 4/31, 4/29

فتاوى فقيه الملت: 3/276-277

والله اعلم بالصواب

দারুল ইফতা, রহমানিয়া মাদরাসা সিরাজগঞ্জ, বাংলাদেশ।

Loading